ক্যারিয়ার গঠনে আত্মসচেতন এর ভূমিকা | আত্মবিশ্বাস অর্জনের উপায়

আত্মবিশ্বাস অর্জনের উপায়

ক্যারিয়ার গঠনে লক্ষে নিজসচেতনার ভূমিকা

ক্যারিয়ার গঠনে নিজসচেতনার এর ভূমিকা । সচেতন থাকলে জীবনের যে কোন পর্যায়ে যে কোনো ধরনের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা খুবই সহজ হয়ে যাই ।  নিজসচেতনা মানুষ নিজেদের ভালো-মন্দ নিজের অনুধাবন করতে পারে । বিধায় ক্যারিয়ারের কোন সময়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিলে ভালো হবে তা তারা বুঝতে পারে । অনেক সময় ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নেয়ার পরও পারিপার্শ্বিক বিভিন্ন সমস্যা তৈরি হতে পারে । সিদ্ধান্তটি সঠিক না হতে পারে । এসব ক্ষেত্রে সচেতন ব্যক্তিরা সিদ্ধান্তটি পুর্নবিবেচনা করে অন্য কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন । 

একজন মানুষ কতটুকু 

সচেতন মানুষের মধ্যে নিজেদের মূল্যায়ন করে থাকে । ফলে তাদের পক্ষে ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা সহজ হয় । অন্যের প্রতি নির্ভরশীলতা মানুষকে তার নিজস্ব চিন্তা চেতনা থেকে দূরে ঠেলে দেয় । এবং তারা আত্মবিশ্বাস  হারিয়ে ফেলে তখন অন্যের উপর নির্ভরশীল থাকে । 

আত্মপ্রত্যয় নিজের সম্পর্কে আত্মবিশ্বাস যথাযথভাবে করতে পারলে  এবং সামর্থ্যের সবটুকু দিয়ে কাঙ্খিত লক্ষ্য নির্ধারণ করে তোলে । আত্মবিশ্বাসী হওয়ায় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারে তারাতারি । দ্রুত সিদ্ধান্ত আসতে পারে মানুষের আস্থা অর্জনে সক্ষম হন । আত্মবিশ্বাসের সাথে কোন কাজ সম্পাদন করে তখন তারা ঐ ব্যক্তির প্রতি আস্থা রাখতে শুরু করে ।

আত্মবিশ্বাসীদের কেউ সমালচনা করলে তারা বেশি কার্যকারী হয় এবং তাদের সমালোচনা গঠনমূলক দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখে তারা সিদ্ধান্ত নেয় ।এবং তার বাস্তবায়ন করতে থাকে । ফলে যারা সমালোচনা করে তারা পরে সমালচনা থেকে বিরত থাকে । 

আত্মবিশ্বাস অর্জনের উপায়

যে কোন কাজে সফলতা অর্জন করা আত্মবিশ্বাস অর্জনের উপায় । শিক্ষা মানুষের অন্তর্নিহিত শক্তিকে জাগ্রত করে পরিচালিত করে । শিক্ষার মাধ্যমে মানুষ আত্মউপলব্ধি সুযোগ পায় । শিক্ষা মানুষকে তার পারিপার্শ্বিক সকল বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করতে জানতে সাহায্য করে । ফলে তারা আত্মবিশ্বাসী হওয়ার রসদপত্র পাই । আত্মবিশ্বাসিদের নিজের শক্তি সামর্থ্য সম্পর্কে জানতে হবে । 

মানুষ তার জীবনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে বুঝতে পারে যে সে কোন বিষয়ে দক্ষ কোন বিষয়ে দক্ষ নয় । সে ভালো করতে পারে কোন বিষয়ে। তার শক্তি সামর্থ কটটুকও । অর্থাৎ আমি কি করতে পারি বা কোন বিষয়ে আমার দক্ষতা বেশি হিসেবে চিহ্নিত করতে হবে । সে বিষয়ে আগ্রহ বেশি সে বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে হবে । প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বার বার অনুশীলন করতে হবে ও অনুশীলন এর  মাধ্যমে নিজের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে এতে আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি ও পাবে ।

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post